ঠোটের কালো দাগের সমস্যা

লিপ কেয়ার রুটিন
লিপ কেয়ার রুটিন

ঠোটের কালো দাগ আমাদের সকলের একটি কমন সমস্যা । আমাদের সকলেরই ঠোটে কম বেশি কালো দাগ রয়েছে ।
আর এ কালো দাগের কারণে অনেক সময় আমাদের নিজেদের কাছে নিজেদের লজ্জিতবোধ হয় ।কিন্তু আমরা নিজেরাও হয়তো জানিনা যে আমাদের ঠোট দিনে দিনে কালো হয়ে যাওয়ার জন্যে আমরাই দায়ী

ঠোটে কালো দাগ হতে পারে ভিবিন্ন কারণে

ধূমপান

smoking health
Photo credit : google

ঠোটে কালো দাগ পড়া বা ঠোট কালো হয়ে যাওয়ার একটি অন্যতম কারণ হচ্ছে ধুমপান। নিয়মিত ধূমপান এর কারণে ঠোট কালচে হতে থাকে । এর প্রধান কারণ হচ্ছে সিগারেট এ থাকা নিকোটিন যা আপনার ঠোটের উপরের চামড়া পুড়িয়ে কালো করতে থাকে । প্রতিনিয়ত ধূমপান করার কারণে আমাদের ঠোটের স্কিন পুড়ে এতটাই নষ্ট হয়ে যেতে পারে যে কোনোভাবেই সেই কালো দাগ আপনি দূর করতে পারবেন না । ধূমপান শুধু স্বাস্থ্যের জন্যেই ক্ষতিকারক নয় , ধূমপানের কারণে আপনার ঠোটের স্কিন এতটাই কালো হয়ে যায় যে আপনি অনেকসময় অনেকের সম্মুখে নিজেকে লজ্জিত বোধ মনে করবেন ।

নকল লিপজেল ব্যবহার

maxresdefault
photo credit : google

শীতের সময় আমাদের সকলের ই ঠোট ফাটা দেখা দেয় । আর ঠোট ফাটা থেকে রক্ষার জন্যে আমরা সকলেই লিপজেল / লিপবাম ব্যবহার করে থাকি । বাজারে অনেক ধরণের লিপজেল / লিপবাম পাওয়া যায় । কিন্তু সব লিপজেল / লিপবাম যে ভালো এমনটা নয় । কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অনেক নকল লিপজেল / লিপবাম বাজারে বিক্রি করে থাকে । আমরা অনেকেই সস্তায় পেয়ে সেগুলো ব্যবহার করে থাকে । যার ফলে সেসব লিপজেল এ থাকা কেমিক্যাল এর কারণে আমাদের ঠোটে কালো দাগ হতে থাকে । আমাদের সকলের উচিত যেকোনো প্রোডাক্ট ব্যবহার করার আগে তা সম্পর্কে ভালো ভাবে জেনে নেয়া । অল্প কিছু টাকা বাঁচানোর জন্যে সস্তায় লোকাল প্রোডাক্ট কিনে সেটা ব্যবহার করে আপনি আপনার স্কিনের ক্ষতি করবেন সেটা কখনোই বুদ্ধিমানের কাজ নয় । শুধু লিপজেল নয় যেকোনো প্রোডাক্ট ব্যবহার করার আগে বিশেষ করে স্কিন এর প্রোডাক্ট আমাদের অবশ্যই তা সম্পর্কে ভালো ভাবে জেনে তারপর ব্যবহার করা উচিত । অথবা বিশ্বস্ত কোম্পানির প্রোডাক্ট ব্যবহার করুন । না জেনে শুনে যেকোনো প্রকার কোম্পানীবিহীন লোকাল / নকল প্রোডাক্ট ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন । যেকোনো প্রোডাক্ট ব্যবহার এর আগে তার খারাপ দিক ঘুলু সম্পর্কে ভালো ভাবে জেনে নিন

কালার লিপবাম

বাজারে অনেক ধরণের লিপবাম দেখা যায় যেগুলো ব্যবহার করলে আপনার ঠোট গোলাপি বা সুন্দর ও আকর্ষণীয় দেখা যায় । অনেকেই ঠোঁট আকর্ষণীয় ভাবে পরিবেশন করার প্রতিযোগিতায় এই ধরণের লিপবাম / লিপজেল ব্যবহার করে থাকে । এ ধরণের লিপজেল / লিপবাম আপনাকে সাময়িক ভাবে সুন্দর করে তোলে ঠিকই কিন্তু পরবর্তীতে আপনার স্কিন পূর্বের থেকেও আরও বেশি কালো করে দেয় । এ ধরণের প্রোডাক্ট ব্যবহার করা থেকে সম্পূর্ণ ভাবে বিরত থাকুন ।

লিপস্টিক

matte lipstick
photo credit : google

ঠোট কালো হওয়ার অন্যতম আরেকটি কারণ হচ্ছে নকল/লোকাল লিপস্টিক ব্যবহার করা । লিপস্টিক মেয়েদের সাজসজ্জার একটি অনেক দরকারি ও পছন্দের জিনিস । বাজারে অনেক নামি দামি কোম্পানির লিপস্টিক পাওয়া যায় । সাথে হাজার হাজার লোকাল লিপস্টিক পাওয়া যায় । যেগুলো দামে কম যার ফলে ব্যবসায়ী রা বেশি প্রফিট এর কারণে বিক্রি করে । এবং দাম কম হওয়ার কারণে সবাই সহজেই কিনে ফেলে কোনো কিছু চিন্তা ভাবনা না করে ।
কিন্তু আমরা আসলে জানিনা আমরা কম টাকায় পেয়ে কি কিনে নিচ্ছি । কমদামি লোকাল লিপস্টিক গুলোতে অনেক বেশি পরিমানে ক্ষতিকারক কেমিক্যাল থাকে যা ব্যবহার করে আমি রূপসজ্জা তো করছেন ই কিন্তু এর কারণে যে আপনার ঠোটের প্রাকৃতিক সৌন্দয্য নষ্ট হয়ে যাচ্ছে আমরা কেউ তা নিয়ে চিন্তা করছি না । আমাদের সকলের উচিত লোকাল কোনো লিপস্টিক ব্যবহার না করা । সম্ভব হলে লিপস্টিক ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকা ।

ঠোটের কালো দাগের সমস্যা
ঠোটের কালো দাগের সমস্যা

সমাধান : খুব সহজেই এবং অল্প সময়ে ঠোটের কালো দাগের সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে আপনারা এই ক্রিম টি ব্যবহার করতে পারেন । এই ক্রিম টি খুব অল্প সময়ে আপনাকে অনেক ভালো ফলাফল প্রদান করবে

ক্রিম টি ব্যবহার করে অনেকেই ভালো ফলাফল পেয়েছে আপনারা ও চাইলে ব্যবহার করতে পারেন

অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করুন